অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট: অনলাইন ইনকাম সাইট ২০২১

You are currently viewing অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট: অনলাইন ইনকাম সাইট ২০২১

অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট:

এর আগে আমি একটি আর্টিকেলে অনলাইন থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত লিখেছিলাম। আজকের আর্টিকেলের বিষয়ও অনলাইন ইনকাম। তবে আমরা যারা বাংলাদেশে বসবাস করি তারা হয়তো ভেবে থাকি যে, বাংলাদেশী এমন কোন সাইট কি আছে যেখানে অনলাইন আয় করা যায় এবং বিকাশ বা যেকোন মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে পেমেন্ট নেওয়া যায়? উত্তর হলো হ্যা। বর্তমানে বাংলাদেশে এমন অনেক সাইট আছে যেখান থেকে আপনি চাইলে ঘরে বসে কাজ করতে পারেন এবং বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারেন। এমনই কয়েকটি অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট নিয়ে আজ আলোচনা করবো, যার প্রত্যকটিই বিশ্বাসযোগ্য অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট । আপনি এখান খুব সহজেই কাজ করতে পারবেন এবং পেমেন্ট তুলতে পারবেন।

অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট

অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট। অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী কয়েকটি ফ্রিল্যান্স ওয়েবসাইট নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলো।

1 – জে আইটি – (অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট)

জে আইটি হলো একটি বাংলাদেশি আইটি রিলেটেড ব্লগ ওয়েবসাইট। বিশেষ করে অনলাইন আর্নিং বিষয়ে তারা বিভিন্ন ধরণের টিপস এন্ড ট্রিক্স নিয়মিত পাবলিশ করতে থাকে। আপনি যদি অনলাইন আয় কিভাবে করতে হয়? কিভাবে কাজ করতে হয়? কিভাবে পেমেন্ট তুলতে হয়? ইত্যাদি জানতে চান তাহলে তাদের ব্লগ সাইটটি ভিজিট করতে পারেন। তাদের ওয়েবসাইটে অনলাইন বিষয়ক টিপস এন্ড টিক্স পাবেন শুধু তাই নয়, আপনি চাইলে এই ওয়েবাসাইট থেকে আয় করতে পারেন।

জে আইটি থেকে যে ধরণের কাজ করে আয় করতে পারবেন

এখানে আপনি কয়েকটি উপায়ে আয় করতে পারেন। উল্লেখযোগ্য কয়েকটি উপায় আমি নিচে আলোচনা করছি।

  • আর্টিকেল লিখে আয়
  • শেয়ার করে আয়
  • রেফার করে আয়
  • ব্লগ পড়ে আয়
জে আইটি বাংলাদেশী প্রযুক্তি বিষয়ক ব্লগ
জে আইটি বাংলাদেশী প্রযুক্তি বিষয়ক ব্লগ

এখানে আপনি ১০০০ ওয়ার্ডের একটি আর্টিকেল লিখে ১৩০ টাকা পর্যন্ত পেতে পারেন। কন্টেন্টের সাইজ  ১০০০ ওয়ার্ডের বেশি হলে সেক্ষেত্রে আরো বেশি পেমেন্ট পাবেন। এখানে একাউন্ট করার মাধ্যমে আপনি যত খুসি তত লিখতে পারবেন। জে আইটিতে যুক্ত হওয়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন। তাহলে নিচের চিত্রের মত একটি ইন্টারফেস পাবেন। কিভাবে কাজ করবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত নিয়ম কানুন খুব সুন্দর করে লেখা আছে। এখানে যুক্ত হয়ে আজই ইনকাম শুরু করে দিতে পারেন।

আর্টিকেল লেখা ছাড়াও শেয়ার করে, রেফার করে, টাস্ক পুরণ করেও আয় করতে পারেন।

2 – Grathor ( গ্রাথোর )

Grathor ( গ্রাথোর ) - প্রযুক্তি বিষয়ক বাংলা ব্লগ

 

GRATHOR (গ্রাথোর) হচ্ছে একটি উন্মুক্ত বাংলাদেশী ব্লগ। এখানে খবর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, জানা-অজানা, ইন্টারনেট, আউটসোসিং, ফ্রিল্যান্সিং, টেক ইত্যাদি বিষয়ে নিয়মিত আর্টিকেল প্রকাশ করা হয়। আপনার প্রয়োজন এমন কোন বিষয় এখানে যেখন শিখতে পারবেন তেমন আপনি জানেন এমন কোনো বিষয় অন্যকে শেখাতে পারবেন।  সবচে মজার ব্যাপার হলো এই শেখানোর মধ্য দিয়ে আপনি এখান থেকে ভালো পরিমানে আর্নিংও করতে পারেন।

কিভাবে এখানে টাকা আয় করা যায়

এখানে আপনি কয়েকটি উপায়ে আয় করতে পারেন। উল্লেখযোগ্য কয়েকটি উপায় আমি নিচে আলোচনা করছি।

  • আর্টিকেল লিখে আয়
  • শেয়ারিং বোনাস
  • রেফারেল প্রগ্রাম
  • পোস্ট ভিউ বোনাস
  • দৈনিক কমেন্ট বোনাস
  • গোল্ডেন বোনাস

আর্টিকেল লিখে আয়ঃ এই ওয়েবসাইটে রেজিষ্টার করে আর্টিকেল লিখে ১০০ টাকা পর্যন্ত পেতে পারেন। তাদের নীতি মেনে যেকোন বিষয়ের উপরে লিখতে পারবেন। আপনার লেখা আর্টিকেল অবশ্যই বাংলায় হতে হবে। অন্য ভাষা লেখা আর্টিকেল গ্রহন করা হয় না। সর্বনিম্ন ৩৫০ শব্দ থেকে শুরু করে যেকোনো সাইজের আর্টিকেল আপনি এখানে লিখতে পারবেন।

শেয়ারিং বোনাসঃ আপনি পোস্ট বিভিন্ন সোসাল মিডিয়াতে শেয়ার করার মাধ্যমে শেয়ারিং বোনাস পাওয়ার মাধ্যমে আয় করতে পারেন।

রেফারেল প্রগ্রামঃ আপনি কাউকে আপনার রেফারেল লিংক দিয়ে এখানে জয়েন্ট করালে প্রতি রেফারেলে ৫০ টাকা পর্যন্ত বোনাস পেতে পারেন।

এছাড়াও আরো কিছু সুযোগ সুবিধা আপনি এখানে পাবেন। বিস্তারিত জানতে উপরে দেওয়া লিঙ্কে প্রবেশ করুন।

3 – বিল্যান্সার থেকে আয়

বিল্যান্সার বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট
অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট

বিল্যান্সার হলো বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। এখানে আপনি ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেসের মতই কাজ করতে পারবেন। কিন্তু এখানে বড় সুবিধা হচ্ছে, ইংরেজি না জানলেও আপনি এখানে কাজ করতে পারবেন। যেহুতু এখানকার ক্লায়েন্টরা বেশিরভাগই দেশি ক্লাইন্ট কাজেই আপনি এখানে এই সুবিধা পাবেন।

গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রি সহ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে এখানে কাজ পোস্ট হচ্ছে। আপনি যদি কোন কাজে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে এখানে রেজিষ্ট্রেষণ করে আপনি যে কাজ পারেন সে কাজে এপ্লাই করার মাধ্যমে আয় করতে পারেন।

দেশি জিনিশের আমাদের অনেকের আনাগ্রহ আছে। কিন্তু আমি ব্যক্তিগত বলবো আমরা সবাই এই সাইটটি ব্যবহার করার মাধ্যমে পৃথিবীর মধ্যে বিখ্যাত একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হলে ভবিষ্যতে আমাদেওই লাভ। আমাদের পার্শবর্তী দেশ ভারত তাদের নিজেদের ফ্রিল্যান্সিং সাইট দাড় করিয়ে ফেলেছে। তো আমরাও পিছিয়ে থাকবো কেন?

আন্তর্জাতিক মার্কেটপ্লেসে এখন বিশাল প্রতিযোগিতা। অনেক প্রতিযোগিতা করে কাজ পেতে হয়। সেক্ষেত্রে আপনি বাংলাদেশি এই মার্কেটপ্লেসে শুরুতেই শুরু করে আপনার অভিজ্ঞতা বাড়াতে পারেন। এখানে কাজ করার আরেকটি সম্ভাবনার বিষয় হলো এখানকার বায়ায়রা বেশির ভাগ লোকাল হওয়ায় আপনি তাদের ভালো সার্ভিস দিতে পারলে তাদের সাথে একটি ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলার মাধ্যমে আপনি একটি স্থায়ী কাজ পেতে পারেন।

4 – কাজ কী ডটকম

বাংলাদেশি আরেকটি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট হলো কাজ কী ডট কম 

বাংলাভাষায় ফ্রিল্যান্সিং করতে চাইলে এটি একটি খুব ভালো মানের মার্কেটপ্লেস। আপনার ইংরেজি ভীতি থাকলে এখানে কাজ করতে পারেন। আন্তর্জাতিক মার্কেটপ্লেস ফাইভার, আপওয়ার্ক এর মত একই সিস্টেমে এখানে কাজ করতে পারবেন। এখানে আপনি আপনারর স্কিল অনুযায়ি গিগ তৈরি করে রাখলে বায়াররাই আপনাকে খুঁজে হায়ার করবে।

কাজকী বাংলাদেশী সাইট
অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট

এখানে যেসব ক্যাটাগরিতে কাজ করতে পারবেন

  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
  • মার্কেটিং
  • ভিডিও ও এনিমেশন
  • রাইটিং
  • মিউজিক ও অডিও
  • এপ ডেভেলপমেন্ট
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  • সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট
  • ডাটা এন্ট্রি

এছাড়া আরো অনেক ক্যাটাগরিতে আপনি এখানে কাজ করতে পারবেন। ২০১৮ সালে এই সাইটটির যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে ২০০০ এর অধিক ফ্রিল্যান্সার এখানে কাজ করছে। আপনার বিশেষ কোন কাজে স্কীল থাকলে এখানে একাউন্ট করে আজই কাজ শুরু করে দিতে পারেন।

5 – স্বাধীন কাজ ডট কম

স্বাধীন কাজ ডট কম শুধুমাত্র বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদেরকে উদ্দেশ্য করেই এই সাইটটি ডেভেলপ করা হয়েছে। এখানে ক্লায়েন্ট বাংলাদেশি এবং ফ্রিল্যান্সারও বাংলদেশি। কাজের এখানে আপনি বাংলা ভাষায় কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন।

স্বাধীন কাজ

এখানে ক্লায়েন্টরা তাদের কাজ পোস্ট করে থাকে। যে বিষয়ের উপরে কাজ পোস্ট করা হয়েছে সে বিষয়ে স্কিলড ফ্রিল্যান্সারদের কাছে অটোমেটিক সিস্টেমে নোটিফিকেশন চলে যায়। তখন ঐসব ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে যারা কাজটি করতে আগ্রহী তারা কাজটির জন্য এপ্লাই করে। ক্লায়েন্ট যারা যারা এপ্লাই করেছে তাদের মধ্য থেকে যাকে খুশি তাকে বেছে নেন। একটা প্রজেক্টের যত টাকা প্রাইস ধরা ধরা তার মধ্যে থেকে ৮০% টাকা ফ্রিল্যান্সার পায় আর ২০% টাকা মার্কেটপ্লেস পায়।

আমাদের বাংলাদেশে অনলাইনে ইনকাম করার মত এরকম আরো অনেক সোর্স আছে। যেখান থেকে আপনি চাইলেও অনলাইনে টাকা আয় করতে পারেন। তবে কথা হচ্ছে আপনি অনলাইন ততক্ষণ কোনো টাকা আয় করতে পারবেন না যতক্ষণ না কোনো কাজের উপরে দক্ষ হবেন। আপনি সরাসরি কোনো প্রতিষ্ঠানে চাকুরি নিলে যেমন কাজ না করলে এবং কাজ না পারলে কোম্পানী আপনাকে চাকুরিতে রাখবে না এবং বেতন দেবে না। ঠিক তেমন কোনো মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট খুলে বসে থাকলে কেউ আপনাকে এসে কাজ দিয়ে যাবে না। কাজ পাওয়ার জন্য আপনার ভালো লাগে এমন কোনো বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

বাংলাদেশি মার্কেটপ্লেস থেকেও অনলাইনে আয় করা যায়। আশ করছি এটি আপনি বুঝতে পেরেছে। আর্টিকেলটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার করবেন। কোন জিজ্ঞাসা থাকলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে লিখবেন। আজ এপর্যন্তই ভালো থাকবেন সবাই।

This Post Has 11 Comments

  1. আহসান উল্লাহ

    দারুন কিছু আর্নিং আইডিয়া পেলাম। ধন্যবাদ লেখক ভাইকে।

  2. md fahim habib

    আপনার লেখার মান খুবই ভালো।

    1. Kamal Mostakin

      আপনাকে ধন্যবাদ ভাই। আপনিও কিন্তু ফাটাফাটি লেখেন।

    2. Munju

      বাংলাদেশী বিভিন্ন সাইট সম্পর্কে ধারনা দেয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। সময় থাকলে ঘুরে আসুন https://ictcorner.com

      1. Kamal Mostakin

        মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। ঘুরে আসবো সময় করে। ভাল থাকুন।

  3. বিল্লাল হোসেন

    রিয়াল সাইটে কাজ করতে চায়

  4. Pexable

    আপনার লেখার ধারাবাহিকতা অনেক সুন্দর।

Leave a Reply